ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংক হচ্ছে না ? গোপন টিপস জেনেনিন।

বর্তমান সময়ে আপনারা যারা ইউটিউবার রয়েছেন তারা অবশ্যই জানেন youtube চ্যানেল এবং ভিডিও ‍ র‍্যাংক হওয়া কতটা জরুরি বিষয়।

Advertisement

কিন্তু বর্তমানে যে সকল ইউটিউবারদের চ্যানেলে হাজার হাজার সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। তারাও কিন্তু একসময় youtube চ্যানেল এবং ইউটিউব ভিডিও র‌্যাংক চিন্তা করত।

তো আপনারা যারা নতুন অবস্থায় youtube চ্যানেল তৈরি করেছেন। বা নতুন ইউটিউবার হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। তাদেরকেও এই ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও রেংকিং বিষয়টির সম্মুখীন হতে হবে।

ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংক হচ্ছে না ? গোপন টিপস জেনেনিন।
ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংক হচ্ছে না ? গোপন টিপস জেনেনিন।

আমরা জানি কোন কিছুই এমনি এমনি পাওয়া যায় না। ইউটিউবে হাজার হাজার ভিজিটর থাকলেও, সঠিক উপায় না জানার কারণে দর্শকদের কাছে ভিডিও পৌঁছায় না।

অন্যদিকে অনেক ইউটিউবারের ভিডিও খুব সহজেই সবার কাছে পৌঁছা যায়। এবং তারা সেই ভিডিওগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণে টাকা ইনকাম করে।

Advertisement

আপনারা জানলে অবাক হবেন। শুধুমাত্র, ফানি ভিডিও তৈরি করে, অসংখ্য ইউটিউবার মাসে কয়েক লাখ টাকা ইনকাম করে থাকে।

আবার অসংখ্য ইউটিউবার রয়েছে, যারা নিয়মিত ভিডিও আপলোড করেও সফলতা অর্জন করতে পারছে না। কারণ তাদের youtube চ্যানেল র‌্যাংক হচ্ছে না।

তার পাশাপাশি আরো অনেকেই রয়েছে যারা নিজেদের ইউটিউব চ্যানেলটি সার্চ করলেও খুঁজে পায় না। তাই আপনি যদি কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস নুসরণ করে কাজ করতে পারেন তাহলে ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংক করাতে পারবেন।

তো আপনারা নতুন অবস্থায় কিভাবে একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে রান করাবেন। এবং ভিডিও গুলো রেংক করাবেন সে বিষয়ে আলোচনা করছি। বিস্তারিত জানতে, আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত করুন।

ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংক হচ্ছে না ? গোপন টিপস জেনেনিন :

আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেল ও ভিডিও রেংকিং নিয়ে চিন্তিত থাকেন। তাহলে আজকের এই পোস্ট শুধুমাত্র আপনার জন্য। আমরা আপনাকে এমন কিছু গোপন টিপস জানিয়ে দেবো।

যে টিপসগুলো মাথায় রেখে কাজ করতে পারলে অবশ্যই ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও সহজেই র‌্যাংক করাতে পারবেন। আর আপনার ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাংকিং হয়ে গেলে যে, ইনকাম করার বিষয়টি নিয়ে আর চিন্তা করতে হবে না। প্রচুর পরিমাণের টাকা ইনকাম শুরু করতে পারবেন।

তো চলুন, গোপন টিপস গুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

ইউটিউব চ্যানেলের একটা ইউনিক নাম দিন (চ্যানেল র‌্যাংকিং টিপস)

আপনার যারা ইউটিউব চ্যানেল তৈরি তৈরি করে টাকা ইনকাম করার কথা চিন্তা করছেন। তাদেরকে শুরুতেই বলবো আপনার youtube চ্যানেল র‌্যাংক করানোর জন্য, চ্যানেলের একটি ইউনিক নাম খুঁজুন।

আপনারা ইউটিউব চ্যানেল খোলার সময় যে, নামটি ব্যবহার করবেন। সেটি যেন আগে থেকে কোন ইউটিউব চ্যানেলের নাম না হয়। সে বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে নেবেন।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার সময় এমন কোন নাম দেয়া যাবে না। যা অলরেডি হাজার হাজার ইউটিউব চ্যানেলের নাম রয়েছে।

তাই ইউটিউব চ্যানেল খোলার সময় আপনি যদি একটি ইউনিক নাম ব্যবহার করেন। তাহলে, সাইট তৈরি করার পরেই আপনার যদি সার্চ করেন। তাহলে আপনার চ্যানেলটি সবার আগে দেখাবে। মানে youtube চ্যানেলের নাম টি র‍্যাংকিং এ যাবে।

আরেকটি কথা বলে দেই, আপনারা যে, বিষয় নিয়ে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে চান? সেই বিষয়ের উপর ইউটিউবের একটি নাম দেবেন।

তাহলে youtube এলগরিদম আপনার চ্যানেল রিলেটেড ভিডিও দেখলে, সেই ভিডিও গুলোকে দ্রুত রেংকিং এ নিয়ে যাবে।

ইউটিউব ভিডিও র‌্যাংক করানোর গোপন টিপস

ইউটিউব চ্যানেল কিভাবে র‌্যাংক করাতে হবে, সে বিষয়ে আমরা ওপরের আলোচনায় বিস্তারিত জানিয়ে দিয়েছি। আপনি সে অনুযায়ী কাজ করতে পারলে সহজেই আপনার ইউটিউব চ্যানেলকে রেংকিংয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।

তো এখন আমি আপনাকে বলব, youtube ভিডিও র‌্যাংক করানোর কিছু গোপন টিপস সম্পর্কে। সেগুলো হলো-

ভিডিও ডিউরেশন বড় করুন

আপনারা ইউটিউবের জন্য যে ভিডিও তৈরি করতে চান। সেই রিলেটেড কনটেন্ট ভিডিও ইউটিউবে সার্চ করলে সহজেই পেয়ে যাবেন।

সেখান থেকে আপনারা আইডিয়া নিতে পারবেন। ভিডিও ডিউরেশনের। মনে করুন আপনি ইউটিউবের জন্য একটি টিউটোরিয়াল ভিডিও তৈরি করবেন।

যা হতে পারে- ইউটিউব থেকে ইনকাম করার উপায়। অলরেডি কিন্তু এই ধরনের ভিডিও অনেকেই তৈরি করে রেখেছে।

আপনারা সেই সকল ভিডিওতে প্রবেশ করে, ভিডিও ভিডিউরেশন দেখবেন। এরকমভাবে, পাঁচ থেকে ছয়টি ভিডিওর ডিউরেশন দেখলে, আপনারা বুঝতে পারবেন। সবচেয়ে বড় ভিডিও গুলো ইউটিউবে সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে থাকে।

তাই আপনারা একটু সময় বেশি নিয়ে, যে ভিডিওটি তৈরি করবেন। তার ডিউরেশন বাড়িয়ে নিবেন। তবে বেশি পরিমাণে ডিউরেশন দেওয়ার দরকার নেই।

কারণ বড় বড় ভিডিও গুলো দেখতে দর্শকরা বোরিং হয়ে যেতে পারে। তাই সে বিষয়ে লক্ষ্য রেখে আপনার ভিডিও ডিউরেশন বাড়াবেন।

নিয়মিত ভিডিও আপলোড করুন

আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেলে নতুন হয়ে থাকেন। সে ক্ষেত্রে নিয়মিতভাবে ভিডিও আপলোড করবেন পারলে প্রতিদিন অন্তত একটি ভিডিও আপলোড করার চেষ্টা করবেন।

এরকমভাবে মাসে বিশ থেকে ত্রিশটি ভিডিও আপলোড করার চেষ্টা করবেন। কিন্তু প্রতিদিন ভিডিও তৈরি করা এতটা সহজ বিষয় নয়। কারণ একটি ভিডিও তৈরি করার পেছনে অনেক সময় এবং শ্রম ব্যয় করতে হয়।

তাই আপনারা একটি সিডিউল তৈরি করে নিবেন। মাসিক হিসেবে টার্গেট করবেন এতগুলো ভিডিও আপনাকে আপলোড করতে হবে।

যা আমরা উপরে বলেছি আপনারা প্রতি মাসে একটি করে হলেও ৩০ টি ভিডিও আপলোড করার চেষ্টা করবেন। আর যদি সম্ভব না হয় ৩০ দিনে ১৫ থেকে বৃষ্টি ভিডিও আপলোড করার চেষ্টা করবেন।

ইউটিউব অ্যালগরিদম যখন দেখবে, আপনি নিয়মিতভাবে ভিডিও আপলোড করছেন। এবং দর্শকরা সেই ভিডিওগুলো পছন্দ করছে। তখন আপনার ভিডিও গুলোকে ব্যাংকিংয়ের ফাস্ট পজিশনে নিয়ে যাবে।

আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করুন

তো ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও র‌্যাংক করানোর জন্য আরও একটি দুর্দান্ত মাধ্যম হলো- আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করা।

আপনারা যে বিষয়ে ভিডিও তৈরি করছেন। সে বিষয়ে অনুযায়ী একটি আকর্ষণীয় টাইটেল তৈরি করে সংযুক্ত করতে হবে। কারণ আপনি যে বিষয়ে ভিডিও তৈরি করেছেন। সেই ভিডিও দেখার আগে, দর্শক এবং youtube অ্যালগরিদম আপনার টাইটেলটি দেখবে।

যখন একজন মানুষ আপনার টাইটেল দেখে বুঝতে পারবে, কি বিষয় নিয়ে আপনার ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে। তখন তারা সেই ভিডিওটি দেখার জন্য ক্লিক করবে।

এরকমভাবে ইউটিউব অ্যালগরিদম আপনার আকর্ষণীয় টাইটেলের উপর ভিত্তিতে, আপনার ভিডিওটি রেংকিং এ নিয়ে যাবে।

তাই আপনারা সব সময় চেষ্টা করবেন। ভিডিও রিলেটেড আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করা। আর আপনি যে, বিষয়ে ভিডিও তৈরি করছেন, সে বিষয়ে আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করার জন্য, ইউটিউবে সার্চ করে নেবেন। দেখবেন আপনার ভিডিও রিলেটেড তথ্যগুলো মানুষ কিভাবে লিখে সার্চ করে।

মানুষের সার্চ করার উপর নির্ভর করে, আপনাকে আকর্ষণীয় টাইটেল বানাতে হবে।তাহলেই আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি র‍্যাংকিং এ যাবে।

ডেসক্রিপন ব্যবহার করুন

ইউটিউব ভিডিও রাংকিং এ নিয়ে যাওয়ার জন্য আরও একটি মাধ্যম হলো ডেসক্রিপশন। তাই ভিডিও আপলোড করার সময় আকর্ষণীয় টাইটেল ব্যবহার করার পাশাপাশি ডেসক্রিপশন অবশ্যই পূরণ করতে হবে।

আরো একটি কথা বলতে চাই আপনার যখন ডেসক্রিপশন পূরণ করবেন। তখন অবশ্যই ভিডিও রিলেটেড যে টাইটেলটি ব্যবহার করেছেন সেটি ডেসক্রিপশনে রাখবেন।

এছাড়া আপনার ভিডিও সম্পর্কে সুন্দরভাবে গুছিয়ে লেখার চেষ্টা করবেন। যাতে করে, ইউটিউব অ্যালগরিদম বুঝতে পারে, আপনি কি বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করেছেন।

ইউটিউবের ডেসক্রিপশন এর উপর ভিত্তি করে, ইউটিউব চালু মূলত আপনার ভিডিওটিকে ranking এর প্রথম পর্যায়ে নিয়ে যাবে।

ট্যাগ ব্যবহার করুন

Youtube ভিডিও ড্যান করার আরো একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হল- ভিডিও ট্যাগ ব্যবহার করা। আপনি যে বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করবেন। আপনার ভিডিওর টাইটেল অনুযায়ী ট্যাগ ব্যবহার করবেন।

আর দেখবেন আপনি যে বিষয় নিয়ে ভিডিওটি আপলোড করছেন। সে বিষয় নিয়ে মানুষ কিভাবে, youtube এ সার্চ করছে। মানুষ একই বিষয়ে বিভিন্নভাবে সার্চ করে থাকে জানার জন্য।

তাই আপনারা সেই সকল তথ্য রিসার্চ করে মানুষের সার্চ করা প্রতিটি টাইটেল সংগ্রহ করে, ট্যাক হিসেবে ব্যবহার করবেন।

যার ফলে, আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওটি দ্রুত রেংকিং হবে। এবং মানুষের যে, বিষয় নিয়ে আপনার ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছে, যেভাবে সার্চ করুক আপনার ভিডিওটি পেয়ে যাবে।

শেষ কথাঃ

আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও র‍্যাঙ্ক নিয়ে চিন্তিত থাকেন। অর্থাৎ youtube চ্যানেল এবং ভিডিওরং হচ্ছে না। এই সমস্যার সমাধান করতে চাইলে, ওপরে দেয়া যে গোপন টিপস গুলো জানতে পারলেন।

সে টিপস গুলো কাজে লাগিয়ে, সামনের দিকে যেতে পারেন। আপনারা সেই টিপস অনুসরণ করে সঠিকভাবে কাজ করতে পারলে, শা করা যায় আপনারা দ্রুত সময়ের মধ্যে ইউটিউব চ্যানেল এবং ভিডিও গুলো র‍্যাংকিং এ নিয়ে যেতে পারবেন।

আর আজকের এই আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে, অবশ্যই কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন ধন্যবাদ।

Advertisement

Leave a Comment