www কে আবিষ্কার করেন ? www কত সালে আবিষ্কৃত হয়? বিস্তারিত জানুন!

www কে আবিষ্কার করেন – বর্তমান সময়ে আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করছি। তারা একটি বিষয়ে লক্ষ্য করি ব্রাউজার দিয়ে একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরে, উক্ত ওয়েবসাইটের নামের প্রথমে www ব্যবহার করা হয়।

Advertisement

তবে আপনি কি জানেন www ব্যবহার করার মূল কারণ কি। এছাড়া আপনি কি জানেন www কে আবিষ্কার করেন ? www কত সালে আবিষ্কৃত হয়?

আপনারা অনেকেই হয়তো google এর সন্ধান করে এই বিষয়গুলোর সঠিক ধারণা পেতে চান? তাই যারা এ বিষয়ে জানতে আগ্রহে তাদের সুবিধার্থে আজকে এই আর্টিকেলে, www কে আবিষ্কার করেন এ বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা দেয়ার চেষ্টা করব।

www কে আবিষ্কার করেন
www কে আবিষ্কার করেন

তো আর্টিকেলের শুরুতেই আপনাকে জানিয়ে দিচ্ছি, টিম বার্নার্স-লি নাম এর একজন ব্রিটিশ বিজ্ঞানী যিনি সর্বপ্রথম www আবিষ্কার করেন। এবং www ১৯৯০ সালের দিকে আবিষ্কৃত করা হয়।

উক্ত সময় থেকে এখন পর্যন্ত www এর ব্যবহার হয়ে আসছে। তো উক্ত www কে সাধারণত ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব বলা হয়।

Advertisement

আর যখন আপনারা একটি ব্রাউজার দিয়ে কোন একটি ওয়েবসাইট এর মধ্যে প্রবেশ করবেন। তখন আপনি সেই ওয়েবসাইটের নামের প্রথম এই www দেখতে পারবেন।

www এর পূর্ণরূপ কি?

তো উপরের আলোচনায় আমরা আপনাকে জানিয়ে দিলাম www কে আবিষ্কার করেন ? তবে অনেকেই জানতে চাই www এর পূর্ণরূপ কি?

তাই তাদের উদ্দেশ্যে বলবো- www এর পূর্ণরূপ হচ্ছে- World Wide Web.

আর আপনি যখন এই World Wide Web পূর্ণ অর্থ খুঁজতে যাবেন। তখন আপনারা দেখতে পারবেন সারা পৃথিবীব্যাপী কম্পিউটারগুলোকে সংযুক্ত করার একটি অন্যতম নেটওয়ার্ক হচ্ছে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব অর্থাৎ www.

www কত সালে আবিষ্কৃত হয়?

উপরের আলোচনায় আপনাদের জানিয়ে দিয়েছি, www কে আবিষ্কার করেন। তো এখন এ বিষয়গুলো জানার পাশাপাশি আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল- www কত সালে আবিষ্কৃত হয়।

সর্বপ্রথম মূলত www আবিষ্কৃত হয় ১৯৮৯ সালে। আর সেই সময় ১৭০০ এরও বেশি বিজ্ঞানী মিলে একটি বিশেষ দল গঠিত করেছিল যারা বিশ্বের 110 টি দেশের মধ্যে বিস্তৃত ছিলেন।

আর সেই সময় তারা যোগাযোগ অক্ষুন্ন রাখতে চাইছিলেন। মূলত তারা যাতে একে অপরের সাথে খুব সহজে যোগাযোগ করতে পারে।

সে জন্যই এই ধরনের ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব আবিষ্কার করেন। টিম বার্নার্স-লি নামের বিজ্ঞানী এটি সারা পৃথিবীর জন্য ১৯৯০ সালে আবিষ্কার করেন।

www এর কাজ কি?

www অন্যান্য বিষয়গুলো জেনে নেয়ার পর আপনাদেরকে www  এর কাজ কি সে বিষয়ে কিছু ধারণা দেয়ার চেষ্টা করব। তো চলুন এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

বিশেষ করে www  কে ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় বিভিন্ন তথ্য বের করার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়।

যার মাধ্যমে আমরা বিশ্বের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে খুব সহজে নিজের তথ্যগুলো আদান প্রদান করতে পারে। তার পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অন্য যেকোনো দেশের ওয়েবসাইট ভিজিট করার সুবিধা পায়।

যেমন আপনি যদি বাংলাদেশে বসবাস করেন তারপরও ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন। আবার আপনি যদি আমেরিকায় বসবাস করেন, সেক্ষেত্রে আপনি ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন।

তো বিভিন্ন কম্পিউটারের নির্দিষ্ট করে একটি ওয়েবসাইটের সংযোগ করার প্রক্রিয়ায় মূলত www এর কাজ।

www এর ইতিহাস?

আপনারা উপরের আলোচনায় বিশেষভাবে জানতে পেরেছেন, www  কে আবিষ্কার করেন এবং কত সালে আবিষ্কৃত হয়। এ বিষয়গুলো জানার পাশাপাশি আপনাদেরকে www এর ইতিহাস সম্পর্কে জানতে হবে তাই আমরা জানানোর চেষ্টা করছি।

বর্তমান সময়ে আপনি যে, প্রযুক্তিগত উন্নতি দেখতে পাচ্ছেন। এগুলো আবিষ্কার হওয়ার পিছনে অনেক ইতিহাস রয়েছে।

এমনই ভাবে www  আবিষ্কার হওয়ার একটি বৃহৎ ইতিহাস আছে। যা আমাদের জেনে নেওয়া অত্যন্ত জরুরী। তাই চলুন www এর ইতিহাস গুলো জেনে নেয়া যাক।

আমাদের জানামতে বেশ কয়েকজন সদস্য মিলে, এক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক শেষ করার পরে একটি বিজ্ঞানী টিম গঠন করেন। তারা সেই টিমের নাম দেয় টিম বারনার্স।

উক্ত টিম এর মধ্যে যে সকল বিজ্ঞানী যুক্ত ছিল। তারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মধ্যে বিস্তৃত হয়ে পড়েছিল। তারা যাতে খুব সহজেই একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

সেজন্যই বৈজ্ঞানিক টিম গুলো সব সময় যোগাযোগ করে, সকল বিষয়ে আলাপ আলোচনা করতে পারে। তার জন্য www আবিষ্কার করেন।

কিন্তু এই বৈজ্ঞানিক টিম থেকে www এর প্রথম প্রস্তাবনা হয়েছিল ১৯৯০ সালে এটি আত্মপ্রকাশ করবে। যখন প্রথম প্রস্তাবনা দেওয়া হয়। তার পরবর্তীতে অন 1990 সালের মধ্যে পুনরায় দ্বিতীয়বার প্রস্তাব প্রদান করা হয়।

কিন্তু উক্ত www সর্বপ্রথম স্বীকৃতি পেয়েছিল ১৯৯০ সালের নভেম্বর মাসের শেষের দিকে। সেই সময় www  এর গ্রহণযোগ্যতা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের জানিয়ে দিলাম, www কে আবিষ্কার করেন, কত সালে আবিষ্কার করেন। এবং www এর ইতিহাস সম্পর্কে বিস্তারিত।

এখন আপনার যদি এ বিষয়ে কোন প্রশ্ন থাকে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। আর আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ইন্টারনেট বিষয়ে নতুন নতুন টিপস পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন

ধন্যবাদ।

Advertisement

Leave a Comment