সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি ? সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শিখে ঘরে বসে আয় করুন।

৳0.00

আপনারা কেমন আছেন আশা করি নিশ্চয়ই ভালো আছেন বরাবরের মতন আজকে আরেকটি নতুন আর্টিকেল নিয়ে আপনাদের মাঝে হাজির হয়েছে আজকের আর্টিকেলের বিষয় হলো সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি ? কিভাবে এবং কেন করবেন।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি ?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে। আমরা অনলাইনে লাখ লাখ টাকা আয়ের স্বপ্ন দেখি। সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বেশ একটি মাধ্যম।

বর্তমানে, এমন অনেক লোক আছে যারা শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে সফল ক্যারিয়ার গড়তে পেরেছে। অনেকেই আছেন যারা এই সোশ্যাল মার্কেটিংকে তাদের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

আবার অনেকেই আছেন যারা এই সোশ্যাল মার্কেটিং এর সাথে যুক্ত থাকার পরও তেমন একটা সফলতা পাননি।

কিন্তু প্রশ্ন হল? যেখানে একদল মানুষ তাদের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে সোশ্যাল মার্কেটিংকে। কেন কেউ সফলতা অর্জন করতে পারে না? তাদের মধ্যে পার্থক্য কী?

এর প্রধান কারণ মার্কেটিং কৌশল। এই কৌশলে যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে। একমাত্র তারাই সফলতা অর্জন করতে পারে।

এবং যারা এই কৌশল সম্পর্কে সচেতন নয় তাদের সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং থেকে ছিটকে পড়তে হবে।

কিন্তু প্রশ্ন থেকে যায়, "সেই মার্কেটিং কৌশলটি কী?" যার ফলে সফলতা পাওয়া সম্ভব?

মূলত, আমি আজকের আর্টিকেলে এই বিষয়গুলি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব। কিভাবে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারেন। আমি সে বিষয়ে A থেকে Z নির্দেশিকা দেওয়ার চেষ্টা করব।

আশা করি একটু সময় নিয়ে পুরো লেখাটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় মার্কেটিং কিভাবে করা যায়। সে সম্পর্কে অনেক গোপন কৌশল সম্পর্কে জানতে পারবেন।

এছাড়া এই সেক্টরে যোগ দিয়ে কিভাবে সফলতা পাওয়া যায়। আমি এটি সম্পূর্ণভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব।

সোশ্যাল মিডিয়া কি?

আমি অবশ্যই সোশ্যাল মার্কেটিং কি তা নিয়ে আলোচনা করব। কিন্তু তার আগে আমাদের জানতে হবে সোশ্যাল মিডিয়া আসলে কী।

সাধারণত Social শব্দের অর্থ সামাজিকতা। তবে আর্থিকভাবে যাই হোক না কেন। সোশ্যাল মিডিয়া বলতে আমরা বুঝি ফেসবুক, টুইটার, লিঙ্কডইন।

এই মাধ্যমগুলি মূলত একে অপরের সাথে যোগাযোগ অটুট রাখার জন্য তৈরি করা হয়েছে। এবং আজকাল মানুষ যোগাযোগের এই মাধ্যমগুলি ব্যবহার করে খুব সহজেই একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে সক্ষম।

আর সে কারণেই এসব মিডিয়াকে বলা হয় সোশ্যাল মিডিয়া যাকে সহজ কথায় বলা যেতে পারে সোশ্যাল মিডিয়া।

তবে আমাদের দেশে অনেকেই শুধু ফেসবুককেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বোঝেন। কিন্তু সেসব মানুষের জানা উচিত যে ফেসবুক ছাড়াও আরও অনেক মাধ্যম রয়েছে। যেমন, Twitter, LinkedIn, YouTube, Pinntarest ইত্যাদি।

সোসাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? (what is social media marketing)

তাহলে উপরে আপনি জানেন যে Social media বলতে সামাজিক মিডিয়াকে বোঝানো হয়ে থাকে। এখন আপনি জানতে পারবেন, এই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি এবং কিভাবে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে মার্কেটিং করতে হয়।

সহজ কথায়, আপনি যখন ফেসবুক বা টুইটারের মতো সামাজিক প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে মার্কেটিং করেন। তখন একে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা হবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনার একটি অনলাইন দোকান আছে। যেখানে আপনি ইলেকট্রনিক্স বিক্রি করেন। এখন আপনি বিভিন্ন সামাজিক প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে আপনার অনলাইন শপের পণ্য বিক্রি করতে চান।

এই মুহূর্তে আপনাকে বেছে নিতে হবে সামাজিক প্ল্যাটফর্মগুলি যা বর্তমানে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। এমন হতে পারে যে আপনি Facebook এর মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করতে পারেন বা আপনি টুইটারের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করতে পারেন।

শুধুমাত্র একটি পণ্য বিক্রির জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা ভুল হবে। কারণ সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি যদি আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রচার করেন।

তারপরও সেই পদ্ধতিকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা যেতে পারে।

মূলত আপনার অনলাইনে থাকা সামাজিক প্ল্যাটফর্মগুলো। সেই প্ল্যাটফর্মগুলিতে আপনার বিজ্ঞাপন পদ্ধতিকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা হবে।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন, না হলে আবার পড়ুন। তাহলে পরবর্তী আলোচনা আপনার বুঝতে সহজ হবে।

কেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে হয়? (Why social media marketing)

এত কিছু জানার পর আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে "এখন এত ধরনের মার্কেটিং থাকা সত্ত্বেও কেন সোশ্যাল মার্কেটিং করবেন"?

হুম, এমন প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক। আর এই প্রশ্নের উত্তর নিয়ে এখন বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

তাহলে এখন থেকে আলোচনা করব। মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে। তা না হলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আপনার অজানা থেকে যাবে।

নিজেকে একটি উদাহরণ হিসাবে বিবেচনা করুন, আপনি প্রতিদিন ফেসবুকে কতটা সময় ব্যয় করেন? চিন্তা করুন, হয়তো 3 ঘন্টা বা 4 ঘন্টা ব্যয় করুন, তাই না?

আবার এরকম অনেক মানুষ আছে। যারা ফেসবুক বা অন্যান্য সোশ্যাল সাইটে প্রতিদিন 10 থেকে 12 ঘন্টা ব্যয় করেন।

এখন আপনি যদি এই লোকদের টার্গেট করতে চান এবং অনলাইন সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে মার্কেটিং করতে চান। তাহলে ভেবে দেখুন, এই মার্কেটিং করার আপনার ধারণা কি সঠিক নাকি ভুল?

অবশ্যই, কারণ এখন আপনি বিজ্ঞাপনের জন্য সামাজিক প্ল্যাটফর্মগুলিকে লক্ষ্য করতে চান। কিন্তু তারপরে আপনি হিউজের মতো দর্শকদের ব্যবহার করতে পারেন।

কারণ, আজকাল মানুষ সবাই প্রযুক্তির দিকে ঝুঁকছে। এবং আরও বেশি মানুষ প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে।

আর আপনাকে মার্কেটিং করতে হবে এই প্রযুক্তি নির্ভর মানুষের সাথে। মূলত এগুলি আপনার ট্রাম্প কার্ড।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ডিমান্ড কেমন?

এবার আরেকটি বিষয়ে আলোচনা করা যাক। তাই আপনি যখন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে যান। তাহলে অনেকেই আপনাকে প্রশ্ন করতে পারেন, এই মার্কেটিং এর চাহিদা কেমন।

তাই আপনি পোস্টে এতদূর এসেছেন। তাহলে বলুন, চাহিদা কেমন? তুমি কি বলতে পার?

থাক! তোমাকে বলতে হবে না। বরং এ বিষয়ে বিস্তারিত বলছি।

দেখুন চাহিদা সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করবে। কারণ, সামাজিক বিজ্ঞাপন কৌশল সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারলে। তাহলে আপনি সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

এবং যখন আপনি সাফল্য অর্জন করতে পারেন। তাহলে আপনার মার্কেটিং চাহিদা থাকবে।

অন্যদিকে, আপনি যদি এই সামাজিক বিজ্ঞাপন কৌশলটি সঠিকভাবে বুঝতে না পারেন। আপনি যদি সেই কৌশলগুলি সঠিকভাবে ব্যবহার করতে না পারেন।

তাহলে আপনি কোনোভাবেই সফলতা অর্জন করতে পারবেন না।

এবং যদি আপনি সফল না হন। তাহলে আপনার মার্কেটিং কৌশলের কোন চাহিদা থাকবে না।

কারণটা কি জানেন? মূল কারণ বুঝতে হলে আপনাকে একটি প্রবাদ শুনতে হবে। অর্থাৎ, “যতক্ষণ না আপনি সফলতা অর্জন করবেন। ততক্ষণ তোমার গল্পের কোনো মূল্য থাকবে না।"

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর কয়েকটি সুবিধা

আপনি মুদ্রার উল্টানো দিক সম্পর্কে শুনে থাকতে পারেন। যার মানে, প্রতিটি সাবজেক্টের কিছু ভালো দিক আছে আবার, এর একটা খারাপ দিকও আছে।

কিন্তু সোশ্যাল মার্কেটিং দেখলে। তাহলে আপনি খারাপ দিকের চেয়ে ইতিবাচক দিকটি বেশি লক্ষ্য করতে পারবেন।

কিন্তু এটা ভাববেন না কারণ আমি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কে একটি পোস্ট লিখছি, আমি শুধুমাত্র পেশাদারদের কথা বলছি। আপনি যদি তাই মনে করেন, তাহলে আমি বলি আপনার ধারণা সম্পূর্ণ ভুল।

তাই বিষয়টি একটু ক্লিয়ার করলেই পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাবে।

আপনি যদি সোশ্যাল মার্কেটিং করেন। তাহলে আপনি বেশ কিছু সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। উদাহরণ স্বরূপ,

Close To Targeted Customers

অনলাইন সেক্টরে সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপনের সবচেয়ে সুবিধাজনক দিকটি হল খুব সহজেই লক্ষ্যযুক্ত গ্রাহকদের খুঁজে পাওয়া সম্ভব। এই সুবিধা আপনি অন্যান্য সেক্টরে খুব কম পাবেন।

দেখুন, এই সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ধরনের মানুষ রয়েছে। এবং এই লোকদের মধ্যে আপনি সহজেই আপনার লক্ষ্য দর্শকদের খুঁজে পেতে পারেন।

ফেসবুকের কথা ভাবলে লাইক দিন। তাই আপনাকে যদি বলা হয়, ফেসবুকে এমন কিছু মানুষকে খুঁজে নিন। যারা পুরনো ফোন ক্রয়-বিক্রয় করে।

এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না?

এটি একটি খুব সহজ জিনিস, এর জন্য আপনাকে সরাসরি এই ধরনের ফেসবুক গ্রুপ বা পেজ খুঁজে বের করতে হবে। যারা মূলত পুরাতন মোবাইল ক্রয় বিক্রয়ের সাথে জড়িত।

আবার যদি আপনি তাও করতে না পারেন। তারপরে আপনি ফেসবুকের মাধ্যমে পেইড প্রচারের মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার মূল দর্শকদের খুঁজে পেতে পারেন।

সুতরাং আপনি সামাজিক বিজ্ঞাপনের সেরা দিকটি খুঁজে পাবেন। অর্থাৎ, আপনি আপনার কাঙ্খিত গ্রাহককে খুব সহজেই আপনার হাতের নাগালে পেয়ে যাবেন।

Easy For Fasted Promotion

আর্থিক দৃষ্টিকোণ থেকে, প্রচার শব্দের অর্থ প্রচার করা। আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপনের কোন বিকল্প নেই।

আর আপনি চাইলে সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে এই প্রচার করতে পারেন। তাহলে আপনি এটি অনেক দ্রুত করতে পারবেন।

এর প্রধান কারণ হল সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় দর্শকের সংখ্যা খুব দ্রুত গতিতে বাড়ছে। এবং এই কারণে, আপনি সহজেই এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে আপনার যে কোনও পণ্য বা সংস্থার প্রচার করতে পারেন।

ধরুন আপনি 1 ঘন্টার মধ্যে 1 লাখ মানুষের কাছে একটি নতুন পণ্য প্রচার করতে চান। এবং আপনি যদি এটি করতে ভার্চুয়াল জগতে সামাজিক প্ল্যাটফর্মের উপর নির্ভর করেন।

তাহলে এই কাজটি সম্পন্ন করার জন্য আপনাকে এত গতি পেতে হবে না।

Make Promotion With Low Budget

কল্পনা করুন আপনার একটি প্রতিষ্ঠান আছে। এবং সেই কোম্পানির একটি পণ্য সম্পর্কে মানুষকে জানাতে চাই।

এখন বাস্তব জীবনে যেকোনো টিভি চ্যানেলে গেলে। তাহলে অনেক টাকা দিতে হবে। কিন্তু অন্যদিকে আপনি যদি এই কাজটি করার জন্য সামাজিক প্ল্যাটফর্ম বেছে নেন।

তাহলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

কারণ আপনার বাজেট খুব কম হলে। তারপরও কম বাজেটে প্রমোশনের কাজ করতে পারেন। যা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর অন্যতম দিক।

উদাহরণস্বরূপ, আমরা যদি ফেসবুক সম্পর্কে চিন্তা করি। তারপর আপনি দেখতে পারেন যে আপনি এখানে কোন পণ্য প্রচার করতে চান, তাহলে আপনি খুব অল্প পরিমাণেও এটি করতে পারবেন।

কারণ 10 ডলার থেকে 10 হাজার ডলারে প্রমোশনের সুযোগ রয়েছে। বাস্তব জীবনে এমনটা আশা করা বোকামি হবে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কোন গুলো?

কেন এবং কিভাবে আপনি এতদিন এই সব বিষয়ে বিস্তারিত জেনেছেন। তাই এখন আমরা জানবো, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং যেটা করবেন। সেই মার্কেটিং কোথায় করতে হবে।

তাই এখন আমাদের জানা-অজানা অনেক সামাজিক প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই এই মার্কেটিং করতে পারবেন।

এখন এটা সম্পর্কে একটু কথা বলা যাক, তাই সোশ্যাল মার্কেটিং করার জন্য অনেক সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম আছে। তবে কিছু উল্লেখযোগ্য প্ল্যাটফর্ম হল,

1- Facebook 

আমরা সবাই জানি যে পৃথিবীতে আজ অনেক সামাজিক যোগাযোগের প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। তার মধ্যে একটি হল ফেসবুক। এটির 2.6 বিলিয়নেরও বেশি (মাসিক) ব্যবহারকারী রয়েছে।

আর সেজন্য ফেসবুককে বিশ্বের তৃতীয় বিশ্বের জনসংখ্যার ওয়েবসাইট বললে ভুল হবে না।

আপনি জেনে অবাক হবেন যে ফেসবুকে বর্তমানে প্রায় এক মিলিয়ন ফেসবুক ব্যবসায়িক পেজ রয়েছে। যার মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানি বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে।

আপনি অন্যান্য সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মের চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে খুব সহজেই এই মার্কেটিং করতে পারেন। আর এই দিকটি চিন্তা করেই ফেসবুক প্রতিনিয়ত তাদের প্ল্যাটফর্ম আপডেট করে চলেছে।

এখানে আপনি প্রচার কাজের জন্য পাঠ্য, ভিডিও, গল্প বা চিত্র ব্যবহার করতে পারেন। আপনি চাইলে ফেসবুক থেকে সরাসরি মার্কেটিং করতে পারেন।

অথবা ফেসবুক মেসেঞ্জারের মাধ্যমে এই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে পারেন।

2- YouTube 

আমরা সবাই জানি যে YouTube বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম। এটির বর্তমান ব্যবহারকারীর সংখ্যা 2 বিলিয়নেরও বেশি (মাসিক)।

ইউটিউবের তথ্য অনুসারে, একজন ব্যবহারকারী তাদের প্ল্যাটফর্মে প্রতিদিন ন্যূনতম 40 মিনিট ব্যয় করে।

আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর জন্য ইউটিউব ব্যবহার করতে চান। তারপর এখানে আপনাকে ভিডিওর মাধ্যমে মার্কেটিং করতে হবে।

03- Pinterest

Pinterest হল একটি ভার্চুয়াল স্ক্র্যাপবুকিং সোশ্যাল মিডিয়া সাইট৷ এখানে আপনাকে আপনার যেকোনো পণ্যের প্রচার করতে হবে ছবির মাধ্যমে।

আপনি যদি Pinterest এর মাধ্যমে সোশ্যাল মার্কেটিং করতে চান। তারপর আপনাকে প্রথমে বোর্ড তৈরি করতে হবে। এবং আপনি যে পণ্যটি প্রচার করতে চান। বোর্ডে সেই পণ্যটির ছবি পিন করুন।

04- Instagram

ইনস্টাগ্রাম হলো one of the fastest-growing social নেটওয়ার্ক প্লাটফর্ম। যেখানে আপনি খুব দ্রুত গতিতে আপনার মার্কেটিং প্রসারিত করতে পারবেন।

2018 সালে Instagram দ্বারা প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, তাদের মাসিক সক্রিয় দর্শক সংখ্যা 1 বিলিয়নের বেশি। যার পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে।

এখানে আপনি ভিডিও এবং ছবির মাধ্যমে সোশ্যাল মার্কেটিং করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি Instagram গল্প এবং লাইভ বৈশিষ্ট্য ব্যবহার করে খুব সহজে এটি করতে পারেন?

এগুলো ছাড়াও এরকম অনেক সামাজিক প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। যেখান থেকে আপনি খুব দ্রুত সোশ্যাল মার্কেটিং করতে পারবেন। এবার জেনে নেওয়া যাক সেই প্ল্যাটফর্মগুলো সম্পর্কে।

সোশ্যাল মিডিয়া লিস্ট

তো চলুন দেখে নেই কি কি ওয়েবসাইট বা প্লাটফর্ম আছে। যেখান থেকে আপনি আপনার কাঙ্খিত সোশ্যাল মার্কেটিং করতে পারবেন।

তাই অনেক ওয়েবসাইট আছে যেমন:-

  • facebook
  • Twitter
  • Meetup
  • Twitch
  • Wattpad
  • Viadeo
  • Skyrock
  • VK
  • Tumblr
  • Linkedin
  • WhatsApp
  • Snapchat
  • Reddit
  • Mix
  • Nextdoor
  • Quora

নোট: এগুলো ছাড়াও আরও শতাধিক সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম রয়েছে। যেখান থেকে আপনি সোশ্যাল মার্কেটিং করতে পারবেন। সেজন্য আপনি যদি গুগলে যান এবং অল সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সাইটের তালিকা লিখে সার্চ করেন তাহলে এরকম আরও অনেক ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানতে পারবেন।

কিভাবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে হয়? 

আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে চান। তাহলে আপনাকে বেশ কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। আর সেই বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

দেখুন, প্রতিটি কাজেরই কিছু কৌশল থাকে। আর সেই কৌশলগুলো যখন গৃহীত হয়। তবেই কাজে সফলতা পাওয়া যায়।

একইভাবে, আপনি যখন এই সামাজিক বিজ্ঞাপনের সাথে জড়িত হতে চান। তারপর আপনাকে অনেক বিষয়ে মনোযোগ দিতে হবে।

এবং যখন আপনি এই বিষয়গুলিকে গুরুত্ব সহকারে নেন। তাহলে সেই সেক্টরে আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা কয়েকগুণ বেড়ে যাবে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে বিষয়গুলো মেনে চললে আপনিও অন্যদের মতো সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে সফল ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন?

তো চলুন এখন পর্যায়ক্রমে সেই বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

সোশ্যাল মিডিয়া নির্বাচন (Social media selection) 

দেখুন, আপনি যদি সোশ্যাল মার্কেটিং করতে চান। তাই সবার আগে আপনাকে সেটা বেছে নিতে হবে। মার্কেটিং এর জন্য আপনি আসলে কোন মিডিয়া ব্যবহার করবেন?

হয়তো আপনি ফেসবুকে মার্কেটিং করছেন বা টুইটারে মার্কেটিং করছেন। তাই আপনাকে আগে থেকেই এটি বেছে নিতে হবে।

তবে এটি সম্পূর্ণরূপে আপনার বিজ্ঞাপন পণ্যের উপর নির্ভর করবে। অর্থাৎ, আপনি আসলে কোন পণ্যের বিজ্ঞাপন করবেন তার উপর নির্ভর করে আপনাকে এই সোশ্যাল মিডিয়া নির্বাচন করতে হবে।

কিন্তু আপনি যখন এই ধাপে থাকবেন। তারপর আপনি নিজেকে কয়েকটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন। আর এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজার চেষ্টা করুন। উদাহরণ স্বরূপ,

  1. আপনি কোন লোকেশনকে টার্গেট করবেন? 
  2. কোন সোশ্যাল প্লাটফর্মটি আপনার টার্গেটেড অডিয়্যন্স সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করে?
  3. সবশেষ কোন প্লাটফর্মটি ব্যবহার করলে আপনি আপনার টার্গেটেড অডিয়্যান্সের কাছে খুব দ্রুততার সাথে পৌঁছাতে পারবেন। 

আপাতত যখন আপনি মার্কেটিং এর জন্য সোশ্যাল মিডিয়া বেছে নিন। তাহলে আপনাকে এই বিষয়গুলিতে মনোযোগ দিতে হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ার নিয়ম অনুসারে কাজ করা

যখন আপনি বুঝতে পারবেন কোন সামাজিক প্ল্যাটফর্মটি আপনার আসলে বেছে নেওয়া উচিত। তারপর ওই প্লাটফর্মের নিয়ম। সেই নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে।

যেমন, আমি ধরে নিচ্ছি আপনি মার্কেটিং এর জন্য ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়া বেছে নিয়েছেন। এখন আপনি চাইলে এই ফেসবুকের মাধ্যমে মার্কেটিং করতে পারেন। তাহলে এখন তোমার কি করা উচিত?

প্রথমে আপনাকে একটি বিজনেস পেজ তৈরি করতে হবে। এই পৃষ্ঠাটি আপনার কোম্পানি বা পণ্য অনুযায়ী কাস্টমাইজ করা উচিত। প্রয়োজনে আপনার প্রতিষ্ঠানের নামে একটি অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করুন।

অন্যদিকে, আপনি যদি ইউটিউবকে বিপণনের জন্য একটি সামাজিক প্ল্যাটফর্ম হিসাবে বেছে নেন। তাই আপনাকে ভিন্নভাবে কাজ করতে হবে, তাই না?

তাই ইউটিউব বেছে নিলে। তারপর আপনাকে প্রথমে একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে। তারপর সেই চ্যানেলটি সঠিকভাবে কাস্টমাইজ করা দরকার। তারপর সেই চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করুন।

আপনি যে সামাজিক প্ল্যাটফর্মটি বেছে নিন না কেন এটি ঠিক তাই। প্ল্যাটফর্মের সমস্ত নিয়ম-কানুন মেনে চলুন এবং তারপর আপনার কাজ চালিয়ে যান।

প্রমোশন বা প্রচার করা 

এটি সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ারিংয়ের শেষ ধাপ। এই ধাপে আপনাকে আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের প্রচার করতে হবে। যার মাধ্যমে আপনি আপনার মার্কেটিংকে সফলতার পর্যায়ে নিয়ে আসতে পারবেন।

তাই এই পর্যায়ে আপনাকে মূলত Advertising এর উপর নির্ভর করতে হবে। অর্থাৎ, আপনি আপনার মার্কেটিংয়ে যে ধরনের দর্শকদের টার্গেট করবেন। দ্রুত সেই দর্শকদের কাছে পৌঁছানোর একটি সহজ উপায় হল বিজ্ঞাপন চালানো৷

উদাহরণস্বরূপ, আমরা যখন ফেসবুক ব্যবহার করি। তারপর আমরা আমাদের নিউজফিডে বেশ কিছু স্পন্সর দেখতে পাই। মূলত এগুলো পেইড প্রমোশন। যার মাধ্যমে তারা আপনার মত দর্শকদের টার্গেট করে তাদের এক্সপোজার বাড়াচ্ছে।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এ কি কি শিখতে হবে?

আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শিখতে চান। তারপর আপনাকে স্ক্র্যাচ থেকে কিছু জিনিস আয়ত্ত করতে হবে। সেসব বিষয়ে যথাযথ দক্ষতা অর্জন করতে পারলে।

তাহলে আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা অনেক গুণ বেড়ে যাবে।

তাই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করার আগে আপনার ২টি জিনিসকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া উচিত। যথা:

  • Marketing Strategy 
  • Advertising Process

হুমম আপনি অবশ্যই এই বিষয়গুলো প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত জানেন। তো চলুন এবার সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই।

What is Marketing Strategy? 

একটু ভেবে দেখুন, একজন সবজি বিক্রেতা যদি ওষুধ বিক্রি করেন। তাহলে এটা কেমন দেখাচ্ছে? এটা নিশ্চয়ই অনেকের কাম্য হবে না, তাই না?

একইভাবে যদি কোনো ফার্মেসি ওষুধের সাথে বোতল বিক্রি করে। তারপরও বিষয়টা খুব একটা উপযোগী হবে না।

এবার আসি সোশ্যাল মার্কেটিং নিয়ে। তাই এখানেও কিন্তু আপনাকে সব দিক বিবেচনা করে কাজ করতে হবে।

যেখানে একটি পণ্য প্রচার করা হবে মানসম্মত করা হবে। আপনার অবশ্যই এই বিষয়টি সম্পর্কে পুঙ্খানুপুঙ্খ ধারণা থাকতে হবে।

এর পাশাপাশি আপনি কীভাবে আপনার পণ্যের প্রচার করবেন তা দর্শকদের কাছে উপযুক্ত মনে হবে। সে সম্পর্কে যথেষ্ট বোঝাপড়া থাকতে হবে।

Advertising Process 

সামাজিক বিজ্ঞাপনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল বিজ্ঞাপন। কারণ এই শেখা অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে আপনাকে এগিয়ে যেতে হবে।

সুতরাং আপনি যখন সামাজিক বিপণন শিখবেন তখন আপনাকে বিজ্ঞাপন প্রক্রিয়াটি ভালভাবে বুঝতে হবে। কারণ প্রতিটি সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মের অ্যাড ডেলিভারি স্টাইল আলাদা।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে চান। তাই এখানে একটি প্রক্রিয়া রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। সেই প্রক্রিয়ায়, আপনি টুইটার বা ইনস্টাগ্রামে এটি করতে পারবেন না।

কারণ প্রতিটি প্ল্যাটফর্ম আলাদাভাবে কাজ করে।

এবং কিভাবে কোন সামাজিক প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপন দিতে হয়। আপনার যদি সে সম্পর্কে কোন ধারণা না থাকে। তাহলে আপনি অন্যদের থেকে অনেক পিছিয়ে থাকবেন।

তাই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শেখার আগে অবশ্যই এই বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন। যাতে পরবর্তীতে আপনার কোন সমস্যা না হয়।

সোশ্যাল মিডিয়া কোথায় থেকে শিখব?

আপনি চাইলে এই সোশ্যাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। তাহলে আপনার সামনে অনেক পথ খোলা থাকবে। আপনি যেকোনো একটি বেছে নিতে পারেন এবং সেই অনুযায়ী শিখতে পারেন।

প্রথমত আপনি যদি একটি It Center এ গিয়ে শিখতে চান। তাহলে সেখান থেকে হাতে কলমে শিখতে পারবেন।

অনলাইনে অনেক সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কোর্স রয়েছে। আপনি চাইলে সেই কোর্সগুলো অনুসরণ করে অনেক কিছু শিখতে পারবেন।

ইউটিউবেও অনেক চ্যানেল আছে। যারা বিনামূল্যে অনেক টিপস শেয়ার করেন। আপনি চাইলে তাদের কাছ থেকেও শিখতে পারেন।

অর্থাৎ, আপনি আসলে কীভাবে শিখতে চান। এটি সম্পূর্ণরূপে আপনার উপর নির্ভর করবে।

পেশা হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কেমন হবে?

কিন্তু পেশা হিসেবে চুরি করাও খুব ভালো কৌশল। যতক্ষণ না ধরা না যায়।

একইভাবে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে আপনি খুব ভালো অবস্থানে আসতে পারবেন।

তারপর আপনি চাইলে এই কাজটিকে আপনার পেশা হিসেবে বেছে নিতে পারেন। তাহলে আপনার চিন্তায় কোনো ভুল থাকবে না।

কিন্তু আপনি যদি এই কাজটি সঠিকভাবে করতে না পারেন। তাহলে আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা কমে যাবে। আর এমন পরিস্থিতিতে আপনি এই সেক্টরকে পেশা হিসেবে বিবেচনা করে বড় ভুল করবেন।

তাই এই সেক্টরে আসার আগে আবার ভাবুন। আর এই সেক্টরে কাজ করার জন্য আপনি কতটা সিরিয়াস তা জানার চেষ্টা করুন।

শেষকথা:

আশা করি আপনি এই পোস্টটি থেকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কে একটি পরিষ্কার ধারণা পেয়েছেন। এরপরও যদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে আপনার কোন সমস্যা থাকে তাহলে কমেন্ট করুন।

প্রযুক্তির সর্বশেষ পোস্ট পেতে নিয়মিত আমাদের authorearning.com যান। authorearning.com ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ?

আপনি চাইলে আজকের এই পোস্ট আপনার কাছের মানুষ যেমন, আপনার আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধবদের সাথে শেয়ার করতে পারেন নিজে পড়ুন এবং অন্যদেরকে পড়ার সুযোগ করে দিন।

Comments

You must be logged in to post a comment.

About Author