অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইট

বর্তমান সময়ে আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে। যারা নিজের ঘরে বসে বিভিন্ন ধরনের অনলাইনে ডলার ইনকাম করার ওয়েবসাইট খুঁজে থাকে।

Advertisement

আমাদের জানামতে এমন অনেকেই রয়েছে যারা অনলাইনে ঘরে বসে নিয়মিত টাকা ইনকাম করছে। কারণ ইন্টারনেটে এমন অসংখ্য অনলাইন আয়ের সুযোগ রয়েছে, যেগুলো নিজের ঘরে বসেই করা যায়।

তবে অনলাইন জগতে, ডলার ইনকাম করার যে, সকল ওয়েবসাইট রয়েছে। সেগুলোতে নিয়মিত কাজ করতে পারলে ভালো পরিমানের টাকা ইনকাম জেনারেট করা যায়।

তাই আজকের এই আর্টিকেলে অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইট কোন গুলো। সে বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা দেয়ার চেষ্টা করব।

এখন আপনি যদি অনলাইন থেকে ডলার ইনকাম করতে চান? তাহলে, তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

Advertisement
অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইট
অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইট

অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইট

অনলাইন থেকে ডলার ইনকাম করার যে সকল ওয়েবসাইটের কথা আমি এখানে বলবো। সেগুলোতে আপনারা একদম ফ্রিতে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে কাজ করতে পারবেন।

আর অনলাইনে ডলার ইনকাম সাইট গুলোতে কি ধরনের কাজ করবেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরব। তাই চলুন আর দেরি না করে, ডলার ইনকাম সাইট সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নেয়া যায়।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট

অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার সবথেকে বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে হলো ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে রয়েছে- ফাইবার, আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সার ইত্যাদি।

উক্ত ওয়েবসাইট গুলোতে প্রবেশ করে নিজের নামে একটি একাউন্ট তৈরি করলে, বিশ্বের বিভিন্ন ক্লায়েন্টদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে কাজ সংগ্রহ করতে পারবেন।

আর ফ্রিল্যান্সিংয়ের এই মার্কেটপ্লেসগুলোতে, বিভিন্ন ক্লায়েন্টদের পক্ষ থেকে কাজ পেলে, আপনারা ঘণ্টাভিত্তিক চুক্তিতে ডলার ইনকাম করতে পারবেন।

তো ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ করতে চাইলে, আপনাকে অবশ্যই কোন নির্দিষ্ট কাজে অভিজ্ঞ হতে হবে। তো বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে কোন কাজের চাহিদা সব থেকে বেশি। সে বিষয়ে আমরা পূর্বের আর্টিকেলে জানিয়ে দিয়েছি।

ফ্রিল্যান্সিং জব ক্যাটাগরি ; ৭ টি সবচেয়ে সহজ ফ্রিল্যান্সিং জব

আপনার চাইলে সেই আর্টিকেলটি অনুসরণ করে ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে একটি কোর্স করতে পারেন। তারপর ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে একাউন্ট তৈরি করে ডলার ইনকাম করার জন্য প্রস্তুতি নিতে পারেন।

এফিলিয়েট ওয়েবসাইট

অনলাইনে অসংখ্য পরিমাণের এফিলিয়েট ওয়েবসাইট আছে। যেগুলোর মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে ডলার ইনকাম করা যায়।

উক্ত এফিলিয়েট ওয়েবসাইট গুলো তাদের প্রোডাক্ট বা পরিসভা গুলোকে অনলাইনে থাকা আপনার যে কোন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে প্রচার করতে পারবেন।

এফিলিয়েট প্রোগ্রামের প্রোডাক্ট গুলো দ্রুত সেল করতে চাইলে আপনারা বেছে নিতে পারেন ইউটিউব চ্যানেল, ব্লগ ওয়েবসাইট, ফেসবুক পেজ ইত্যাদি।

যেকোনো ধরনের একটি অনলাইন নেটওয়ার্ক আপনার কাছে থাকলে, আপনি পণ্য প্রচার করে এফিলিয়েট ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম করা শুরু করতে পারবেন।

গুগল অ্যাডসেন্স

গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করে বর্তমান সময়ে ব্লগাররা প্রতিমাসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করছে। তাছাড়া অনেকেই নিয়মিত কাজ করার ফলে প্রতিদিন ১০০ ডলার থেকে ২০০ ডলার ইনকাম করছে।

কিন্তু আপনি যদি এডসেন্স থাকে টাকা ইনকাম করার চিন্তা করেন। তাহলে আপনার কাছে অবশ্যই একটি ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে। যেখানে নিয়মিত কন্টেন্ট পাবলিশ করতে হবে সেইসাথে প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক থাকতে হবে।

আপনি যদি ওয়েবসাইট তৈরি করে গুগল এডসেন্স দ্বারা ইনকাম করতে চান? তাহলে আপনার ওয়েবসাইটে কোয়ালিটি সম্পন্ন 20-30 টি কনটেন্ট লিখে পাবলিশ করবেন।

তারপর যখন ভিজিটর আসা শুরু করবে, তখন গুগল এডসেন্স অনুমোদনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

অন্যদিকে আপনি যদি ইউটিউব চ্যানেল নিয়ে কাজ করেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমাণের youtube ভিডিও আপলোড করতে হবে। তারপর যখন ভিডিও গুলো দেখার জন্য হিউজ পরিমাণে ভিজিট আসা শুরু করবে।

আর যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার পূরণ হবে, তখন গুগল এডসেন্স মনিটাইজেশন করার আবেদন করতে পারবেন।

এরকম ভাবে আপনি যখন সকল শর্ত সমূহ পূরণ করে, গুগল এডসেন্স এ আবেদন করবেন। তখন google এডসেন্স দ্রুত সময়ের মধ্যে আপনার এডসেন্স অ্যাকাউন্ট অ্যাপ্রভাল দিয়ে দিবে।

আর গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভাল হয়ে গেলে, আপনারা বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে ইনকাম করা শুরু করতে পারবেন।

ইউটউব

ইউটিউবের পার্টনার প্রোগ্রাম এর জন্য আবেদন করার মাধ্যমে আপনি youtube থেকে ডলার ইনকাম করার সুযোগ পেয়ে যাবেন।

ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করার অনেক উপায় রয়েছে। যেমন ইউটিউব চ্যানেল মেম্বারশিপ, সুপার চার্টস, ইউটিউব প্রিমিয়াম রেভিনিউ ইত্যাদি।

আপনার জন্য আরো পোস্টঃ

এছাড়া ইউটিউব শর্টস ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে ডলার ইনকাম করতে পারবেন। তবে youtube থেকে টাকা ইনকাম করতে চাইলে আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করতে হবে।

এখন আপনারা ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রামের জন্য আবেদন করতে চাইলে। শর্ত অনুযায়ী ইউটিউব চ্যানেলে ১০ সাবস্ক্রাইবার এবং ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম পূরণ করতে হবে।

ইউটিউবের পর্যাপ্ত শর্ত পূরণ করতে পারলে, গুগল এডসেন্স মনিটাইজেশন করে ডলার ইনকাম করা শুরু করতে পারবেন।

আপওয়ার্ক

আপনি যদি অনলাইন সেক্টরে বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট খুঁজে থাকেন। তাহলে আমি আপনাকে আরও একটি ওয়েবসাইটের কথা বলব সেটি হল- Upwork.

আপওয়ার্ক মূলত অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস। যেখানে নিজের দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন কাজ করা যায়।

যেমন- এই ওয়েবসাইটে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে, আপনারা গ্রাফিক্স ডিজাইন, কন্টেন্ট রাইটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও) সহ আরো বিভিন্ন ধরনের কাজ করে টাকা/ ডলার ইনকাম করতে পারবেন।

আপনারা কোন একটা নির্দিষ্ট কাজে যুক্ত হতে পারলে, আপওয়ার্ক থেকে প্রতি ঘন্টায় ভিত্তিক চুক্তিতে 30 ডলার থেকে 50 ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আপনারা যারা অনলাইনে ডলার ইনকাম করার সেরা ওয়েবসাইটগুলো খুঁজছিলেন। তাদের সুবিধার্থে আমরা উপরোক্ত আলোচনায়, জনপ্রিয় এবং বিশ্বস্ত অনলাইন ডলার ইনকাম করার সাইটগুলো সম্পর্কে জানিয়ে দিয়েছি।

এখন আপনার পছন্দের একটি ডলার ইনকাম করার ওয়েবসাইট বেছে নিয়ে কাজ শুরু করে দিতে পারেন।

আর অনলাইনে টাকা ইনকাম করার বিষয়ে, আরো অন্যান্য আর্টিকেল পড়তে চাইলে। আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

ধন্যবাদ।

Advertisement

Leave a Comment